Sunday, March 24, 2019

Siddhirganj 335 MW Power Plant is the most expensive compared to other




335 MW Siddhirganj plant is a Combined Cycle owned by EGCB, with a 1x1x1 multi-shaft configuration. Isolux Corsán has built a 335 MW combined-cycle electricity generation plant in Siddhirganj, one of Bangladesh’s key industrial hubs located 20 km from the capital, Dhaka.


The Siddhirganj 335-megawatt (MW) combined cycle power plant (CCPP) is the most expensive one in the world compared to other similar power plants 

The Executive Committee of the National Economic Council approved the project in 2007.
In 2008, the World Bank (WB) provided USD 350 million to construct a 300-MW gas turbine power plant in Siddhirganj.
In the face of increasing power demand and gas shortages, the government decided to convert the peaking power plant to an energy-efficient 335-MW combined cycle power plant.


According to the IMED report, the construction cost per kilowatt (kW) for the Siddhirganj combined power plant involves USD 961 while the second costliest power plant involves USD 854 per kW to construct a similar 747-MW power plant by Pakistan Electric Power Company in Sindh province of Pakistan recently.

CLIENT: Isolux Corsán

SERVICES: Basic and Detail Engineering

YEAR: 2013-2014

COUNTRY: Bangladesh



g


On October 5, 2015, Spanish nationals working for power plant construction company Isolux Ingenieria were withdrawn from the project on security grounds. This withdrawal came in the wake of the murders of two foreigners in the country. The state-owned Electricity Generation Company of Bangladesh (EGCB) is implementing the project with joint funding from the World Bank (WB) and the government.

The EGCB has signed an agreement with two foreign construction companies for the Siddhirganj project in Narayanganj district.
The joint venture of Isolux Ingenieria SA and Samsung C&T Corporation, a Spanish-South Korean consortium, obtained the engineering, procurement and construction (EPC) contract and started work in August 2012.

Source : The Independent Bangladesh 




Wednesday, January 17, 2018

হকার উচ্ছেদ নিয়ে মেয়র আইভির বাড়া বাড়ি









 অনেকদিন ধরেই নারায়ণগঞ্জে হকার এবং তাদের উচ্ছেদ নিয়ে চলছিল উতপ্ত রাজনৈতিক বাক্য আলাপ । হকার এবং তাদের যত্র তত্র ফুটপাত দখল হয়ত কিছুটা হলেও সাধারন মানুষদের চলাচলে বিগ্নিত করে । কিন্তু এই সাধারন মানুষরাই কিন্তু ফুটপাত টিকিয়ে রেখেছে ।

হকারদের কাছ থেকে চাদা যেই নেউক না কেন রাস্তার পাশে খোলা আকাশে  দোকান  খুলে বসা মানুশগুলো কিন্তু কোটিপতি না । নিদারুন পেটের দায়েই এই সকল মানুশগুলা ফুটপাতে বসে কিছু বিক্রির চেষ্টা করে । সখের বসে আনন্দে রোদ বৃষ্টি আর শীতে তারা রাস্তায় দাড়ায় না ।




নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের অনেক গুরত্বপুরন কাজ আছে এবং অনেক কাজ যা এখন শুরুই  হয় নি সেখানে মেয়র আইভি তার লাইফের মিশন হিসাবে যেভাবে হকার উচ্ছেদ কে একটি ইস্যু বানিয়ে একটি সংঘাত ময় পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছেন তা একান্তই তার রাজনৈতিক ব্যারথতা ।  কিছু গরীব মানুষের পেটে লাথি মেরে আমাদের ভদ্র সমাজের চলাচলের রাস্তা তৈরি করা কতটুকি শোভনীয় ।



হ্যা এটা সঠিক হকার যেখানেই বসুক যে  ব্যাক্তি রাজনৈতিক ক্ষমতায় আছে তারা এর থেকে চাদা নেয় । এটি শুধুমাত্র নারায়ণগঞ্জের মধ্যেই সীমাবদ্ধ না । হকার রা চাদা দেয়  , তারা পেটের দায়েই দেয় । কাউকে চান্দা দিয়ে যদি তার পেট চলে তাতে সেই খেটে খাওয়া মানুষগুলোর আপত্তি নেই । সিটি কর্পোরেশনের অনেক গুরত্বপুরন কাজ বাদ দিয়ে শুধুমাত্র  সংসদ শামিম ওসমানের বিরোধিতা করার লক্ষে  এতগুলা গরীব মানুষের পেটে লাথি দেওয়ার কোন মানে হয় না ।





আমাদের আহবান মেয়র আইভির কাছে দয়াকরে গরীব মানুশগুলার পেটে লাথি না মেরে তাদের জন্য কিছু করুণ । চাদায় ভাগ পান না বলে হকার উচ্ছেদ করে রাস্তা পরিস্কার করার আইডিয়া কাজ করবে না । আপনি হয়ত বসুন্ধরা নাইলে যমুনায় যান - লক্ষ গার্মেন্টস কর্মী আর খেটে খাওয়া মানুশগুলার বসুন্ধরা শপিং কমপ্লেক্স হোল নারায়ণগঞ্জ এর ফুটপাত । আর এই ফুটপাতে বসে হকার দের ঘরে  খাবার জোটে । মানুষের ভাতের প্লেটে লাথি দিয়ে লাভ নাই ।



Wednesday, May 24, 2017

সিদ্ধিরগঞ্জ থানার দুর্নীতিবাজ ওসি সারাফত উল্লাহ প্রত্যহার ও বিভাগীয় ব্যবস্থা

সিদ্ধিরগঞ্জ থানা বিতর্কিত ওসি (প্রশাসন) মুহাম্মদ সরাফত উল্লাহকে প্রত্যাহার করে নেয়া হয়েছে। ওসি সরাফত উল্লাহ সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় যোগদানের পর থেকে তার বিরুদ্ধে নানা বিতর্কিত কর্মকাণ্ডের অভিযোগ ওঠে। বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের বাইরে খোদ ক্ষমতাসীন দলের স্থানীয় নেতাদের বড় একটি অংশও তার ওপর ক্ষব্ধ।

জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মো. মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, গণমাধ্যমে আসা প্রতিবেদন ও বিধবা নারী আছমা বেগমের অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসি সরাফত উল্লাহ, পরিদর্শক (তদন্ত) আবুল হোসেন ও এসআই ওমর ফারুকের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ করে তদন্ত কমিটি। দায়িত্ব পালনে অবহেলা ও সরকারি দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন না করায় অভিযুক্ত তিনজনকে সিদ্ধিরগঞ্জ থানা থেকে প্রত্যাহার করার জন্য জেলা পুলিশ সুপার বরাবর প্রতিবেদন দাখিল করা হয়। এর ভিত্তিতে অভিযুক্ত ওসিসহ তিন কর্মকর্তাকে প্রত্যাহার করে পুলিশ লাইনসে সংযুক্ত করা হয় ।

গত ৬ই মে শনিবার দুপুরে নারায়ণগঞ্জ প্রেস ক্লাবের হানিফ খান মিলনায়তনে সিদ্ধিরগঞ্জের শিমরাইল এলাকার মৃত হোসেন আলী সাউদের স্ত্রী আছমা বেগম সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করেন, তার বাবার ওয়ারিশ সূত্রে সিদ্ধিরগঞ্জে ৪৯ দশমিক ৫০ শতাংশ সম্পত্তি আমরা ৭ ভাই বোন ভোগ করে আসছি।  সিদ্ধিরগঞ্জ বাজার এলাকা আব্দুল্লাহ আল মামুনের ছেলে সাকিব বিন মাহমুদ (৫০), মো. মহসিন ও মৃত নূর মোহাম্মদের ছেলে মনির জোর করে ওই সম্পত্তি দখলে নেয়ার চেষ্টা করে।
পরে গত ২৫শে এপ্রিল আদালতে পিটিশন দায়ের করা করা হলে আদালত ভূমিতে শান্তিশৃঙ্খলা রক্ষার জন্য সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসিকে আদেশ দেন। আমি আদেশের নথি নিয়ে ওইদিন সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ওসি সরাফত উল্লাহর সঙ্গে দেখা করতে গেলে উল্টো আমার সঙ্গে অশোভন আচরণ করে থানা থেকে বের করে দেয়। পরে জানতে পারি ওসি আগে থেকেই আসামিদের থেকে ১৮ লাখ টাকার বিনিময়ে ম্যানেজ ছিল। পর দিন ২৬শে এপ্রিল সকাল ১০টায় আমি আদালতের আদেশ নিয়ে থানার পরিদর্শক (তদন্ত) আবুল হোসেনের সঙ্গে দেখা করলে তিনি ওই আদেশ রাখার জন্য আমার কাছে ২ হাজার টাকা গ্রহণ করেন।
এ ছাড়াও এসআই জাহাঙ্গীর আলম আমার ভাই আলীর কাছ থেকে ৩ হাজার টাকা নিয়ে নালিশা ভূমিতে আসামিদের কাজ বন্ধ করে দেন। কিন্তু ২ থেকে ৩ মিনিট পর থানার অপর এসআই ফারুক এসে আমার ভাই মো. আলী সহ ওমর ফারুক ও ইমরানকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়। তখন তাদের ছেড়ে দিতে এসআই ফারুক ৫০ হাজার টাকা উৎকোচ দাবি করে এবং ওইদিন রাত ১১টায় থানার ওসির সঙ্গে দেখা করতে বলে।
পরে আমি রাত সাড়ে ১১টায় ৫০ হাজার টাকা সহ আমার বাড়ির কর্মচারী দেলোয়ারকে থানায় পাঠাই। ওমর ফারুক সেই টাকা গ্রহণ করে। এদিকে মিথ্যে মামলায় ১৯ দিন জেল খেটে গত ১৬ই মে জামিনে মুক্ত হয় ওই বিধবার ভাই মো. আলী ও তার মেয়ের জামাতার কর্মচারী ওমর ফারুক ও ইমরান।

  • তথ্য সুত্র - সিদ্ধিরঞ্জ ডট কম  ও প্রথম আলো ও মানব্জমিন

Saturday, March 11, 2017

আজ থেক উইকিপিডিয়ায় যোগ হোল সিদ্ধিরগঞ্জ - অনেকদিনের প্রচেষ্টার প্রাপ্তি

আমাদের সিদ্ধিরগঞ্জ শিল্পায়ন ও বাংলাদেশের অর্থনীতির জন্য অনেক গুরত্বপুরন হলেও এতদিন সিদ্ধিরগঞ্জ সম্পর্কে তথ্য মুলক কোন পেজ wikipedia ছিল না । সমগ্র বিশ্বের কাছে তথ্যের প্রথম উৎস হোল উইকিপিডিয়া ।

বিগত অনেক দিন যাবত অনেক প্রচেষ্টা , লেখা  এবং তদবির করার পড় এখন উইকিপিডিয়ায় আজ থেকে  জায়গা করে নিয়েছে সিদ্ধিরগঞ্জের তথ্য মুলক উইকিপিডিয়া পেজ । https://en.wikipedia.org/wiki/Siddhirganj  এই লিঙ্কে গেলে ই উইকিপিডিয়ার এই পেজ টি দেখতে পাবেন । কিছুদিনের মধ্যে গুগলে ইংরেজিতে সিদ্ধিরগঞ্জ(Siddhirganj) লিখে সার্চ দিলে প্রথমেই সিদ্ধিরগঞ্জ এর উইকিপিডিয়া পেজ আসবে বলে আশা করছি  ।



এখন এই পেজ টি ইংরেজিতে আছে , তবে সপ্তাহখানেকের মধ্যেই উইকিপিডিয়ায় সিদ্ধিরগঞ্জ এর বাংলা উইকি পেজ তৈরি  করে ফেলব আশা করি ।  এখন থেকে আশা করি যে কেউ সিদ্ধিরগঞ্জ নিয়ে কিছু জানতে চাইলে আমাদের ওয়েবসাইট বাদেও আন্তর্জাতিক ভাবে উইকিপিডিয়ায় সিদ্ধিরগঞ্জের অতীতের ইতিহাস এবং বর্তমান সাফল্য নিয়ে জানতে পাড়বেন ।

সিদ্ধিরগঞ্জ  আপনার জন্মভহুমি  , এই নিয়ে    আপনিও যে কোন সুন্দর গল্প , সৃতি  , ইতিহাস , কবিতা  বা যে কোন কিছু  লিখতে পাড়েন । লিখে আমাদের ফেসবুক পেজে মেসেজ করে দিন । ইন্সাল্লহা প্রকাশ করার চেষ্টা করব  ।

সকলে ভাল থাকবেন ।

---- আজিজ তারেক

 




Thursday, February 16, 2017

Adamjee EPZ Profile - Siddhirganj.com


Adamjee Export Processing Zone is located in  Siddhirganj , one of the oldest industrial city in Bangladesh. Overly siddhirganj Industrial zone have more than 15 thousand factory and industrial establishment .


The basic information regarding AEPZ is provided below in an orderly fashion.














Adamjee EPZ

Established: 2006
Adamjee Nagar, Shiddirgonj, Narayanganj

15 Km form Dhaka City
Zone area: 245.12 Acres
Number of industrial plots: 229
Plot Size: 2000 sqm Avg.
Plot Tariff : US $ 2.20 /sqm /year
Export (Cumulative Million USD)

in FY 2014-15

1,688.28
Employment Cumulative (Number)

40,091
Investment

(Cumulative Million USD)

in FY 14-15

316.48


Year Wise Employment in Adamjee EPZ























































YearCumulative ( No. )
2005-061625
2006-071816
2007-085989
2008-097772
2009-1011789
2010-1116156
2011-1221017
2012-1330874
2013-1436007
2014-1540091
2015-1646459

 




Year Wise Export























































YearCumulative ( Million US $ )
2005-060.23
2006-079.69
2007-0824.8
2008-0984.92
2009-10188.57
2010-11353.25
2011-12560.57
2012-13834.67
2013-141220.90
2014-151688.28
2015-162251.19



 

List of company invested in Adamjee EPZ , Siddhirganj



























































































































































































































































































































































































































































S/NName Of EnterpriseInvesting CountryProductsWeb Address
1A.M.C.S Textiles LimitedUNTD KINGDOMGarments
2Ananta Apparels Ltd.MAURITIUSGarments
3Ananta Huaxiang LimitedSINGAPOREKnitting & other Textile pdt.
4Astha Tech. LtdBangladeshGarments Accessories
5Beka Garment Textiles LimitedBANGLADESHGarment Accessories
6Bengal Pelli (BD) Ltd.PORTUGALFootwear & Leather goods
7Bumsei Co., Ltd.S. KOREAFootwear & Leather goods
8Cancun Food Products Ltd.GERMANYMiscellaneous
9CG Fashions LtdJAPANGarments
10Checkpoint Systems Bangladesh Ltd.NETHERLANDGarment Accessories
11Dhaleshwari LimitedBANGLADESHGarment Accessories
12DNV Clothing Ltd.INDIAGarments
13Enigma Tech LimitedBANGLADESHKnitting & other Textile pdt.
14Epic Garments Mfg. Co. LtdHONGKONG,CHINAGarments
15Erum Bangladesh LimitedSPAINGarment Accessories
16Euro-A Zipper Co. (BD) Ltd.BANGLADESHGarment Accessories
17Exhibit Clothing Ltd.HONGKONG,CHINAGarments
18FEM Wendler Interlining Ltd.GERMANYKnitting & other Textile pdt.
19French Fashion Knitting Pvt. Ltd.HONGKONG,CHINAGarment Accessories
20Garisan Etika Bangladesh (Pvt.) Ltd.MALAYSIAPower Industry
21Hamilton Metal Corporation Ltd.BANGLADESHGarment Accessories
22Hanzee Industrial Company LimitedKOREA RPGarment Accessories
23Hy-Lan Sweater International Ltd.CANADAKnitting & other Textile pdt.
24ImageBANGLADESHGarment Accessories
25Image (Unit-2)BANGLADESHGarments
26Interlabes Robust Bangladesh (Pvt.) Ltd.INDIAMiscellaneous
27King Kong Leather Ware (BD) Ltd.MALAYSIAFootwear & Leather goods
28Kone Garments & Accessories Mfg.Co.(BD) Ltd. (U-2)HONGKONG,CHINAGarments
29Korean Leather Tech Co. Ltd.CHINAFootwear & Leather goods
30Kwun Tong Apparels Ltd.BR. VIRGIN. ISGarments
31London 1st Textiles Ltd.UNTD KINGDOMGarments
32Maa Composite Ltd.BANGLADESHKnitting & other Textile pdt.
33Maheen Dizayn Etiket (BD) LimitedBANGLADESHGarment Accessories
34Maruhisa Pacific Co. Ltd.JAPANKnitting & other Textile pdt.
35Mikhail Plastopak LimitedBANGLADESHGarment Accessories
36NATco Global Packaging Dhaka Ltd.U.S.A.Garment Accessories
37Neo Bangla LimitedS. KOREAChemical & Fertilizer
38Newtop Textile BD Ltd.CHINATextile
39R-Pac Bangladesh Packaging Co. Ltd.U.S.A.Garment Accessories
40Remi Holding Ltd.BANGLADESHKnitting & other Textile pdt.
41Renaissance Jewellery Bangladesh Pvt. Ltd.INDIAMiscellaneous
42Ribbon and Bow Factory Ltd.BR. VIRGIN. ISGarment Accessories
43Saitonensi Bangladesh Ltd.JAPANTextile
44Saleha Wires LimitedBANGLADESHMetal Products
45Scandex Knitwear LimitedBANGLADESHKnitting & other Textile pdt.
46Shore to Shore Textile Ltd.BANGLADESHGarment Accessories
47Sigma Engineers LimitedBANGLADESHMiscellaneous
48Simba Fashions LimitedINDIAGarments
49SML Packaging Solutions Bangladesh LimitedHong Kong, India and CanadaGarment Accessories
50Suad Garments Industries Ltd.KUWAITGarments
51Super Protective Shoes (Pvt.) Ltd.UKRAINEFootwear & Leather goods
52Supreme Knitwear Ltd.HONGKONG,CHINAGarments
53Supreme Smartwear Ltd.HONGKONG,CHINAGarments
54T & S Buttons (Bangladesh) Ltd.HONGKONG,CHINAGarment Accessories
55Tex Zippers (BD) Ltd.INDIAGarment Accessories
56UHM Ltd.BANGLADESHGarments
57Universal Menswear Ltd.ROMANIAGarments
58Yassma Knitting & Dyeing Ltd.PAKISTANKnitting & other Textile pdt.
59Yester Accessories Company (BD) Ltd.HONGKONG,CHINAGarment Accessories
60Yester Jeans Ltd.BANGLADESHGarments
61Yokohama Labels and Printing (BD) Co. Ltd.JAPANGarment Accessories



Eshtablished: 2006

Zone area : 245.12 Acres

Number of industrial plots : 229

Plot Size: 2000 sqm Avg.

Plot Tariff : US $ 2.20 /sqm /year.

Space of Standard Factory Building : 56196 sqm.

SFB Tariff : US $ 2.75 /sqm /month

Water Supply : Treated water through Treatment Plant.
Tariff : Tk. 25.74 / CM.
Gas Supply : From Titas Gas Transmission & Distribution Company Ltd.
Tariff : Tk. 5.86 / CM.
Power Supply : Own Sub-station. 11 kv, 3 phase, 50 cycles / sec.
Tariff : Tk. 8.05 / kwh.
(Utilities will be charged at the current rate of US $)

 

 

 

 

History :

 

 

Thursday, December 22, 2016

সিদ্ধিরগঞ্জে এবার বিজয় হল তারুণ্যের - আরিফুল হক হাসান নির্বাচিত হলেন চারনাম্বার ওয়ার্ডের কাউন্সিলর



এইবারের চার  নাম্বার ওয়ার্ডের কমিশনার নির্বাচন ছিল উত্তেজনাকর ।  সিদ্ধিরগঞ্জের একটি অন্যতম গুরত্বপুরন ওয়ার্ডে কে হবেন কমিশনার এই নিয়ে চলেছে বিভিন্ন খেলার চাল ।  এলাকার বিভিন্ন গন্য মান্য ব্যাক্তিবরগ বিভিন্ন মেরুতে ভাগ হয়ে যাওয়ায় এর নির্বাচনী প্রচারনাও ছিল প্রতিযোগিতায় ভরা ও মাঝে মাঝে হুমকিতে নগন্য ।

শুরু থেকেই আওয়ামিলিগের সংগ্রামী নেতা মতিন মাস্টার এর ছেলে আরিফুল হক হাসানের নির্বাচনী প্রচারনায় ছিল অন্য পক্ষের বিপুল হুমকি ধমকি । নির্বাচিত হলে হাসান সমর্থনকারীদের এলাকা ছাড়া করা হবে এর তবলা বাদক ছিল সবখানে । এমনকি বিভিন্ন প্রচারণা ক্ষেত্রে এর  সমর্থনকারীরা শারিরিক ভাবেও  হামলার সম্মুখীন হয়েছে  ।  এইবার প্রাক্তন  কমিশনার হোসেন চেয়ারম্যান  ,  হাসানের অন্যতম প্রতিপক্ষ নজ্রুল কে সমর্থন দিলে  কোণঠাসা হয়ে পড়ে  হসান এর সমর্থনকারী গোষ্ঠী ।  কিন্তু কিছুদিন আগে উপ নির্বাচনে অলরেডি নির্বাচিত হওয়া হাসান জয় করে নিয়েছে তারুণ্যের মন ।



এইবার নারায়ণগঞ্জ নির্বাচনে  হাজারো তরুন ও নতুন ভোটার রা বদলে দিয়েছে সকল প্রেক্ষাপট । টাকা দিয়ে ভোট কেনার সংস্কৃতি বদলে দিয়েছে তরুন ভোটার রা । মুলত শিক্ষিত এবং তরুন হাসান ছিল এলাকার তরুন দের মাঝে একজন আইকন । চার নম্বর ওয়ার্ডে এবার বয়েছে টাকার খেলা । ভোট কেনার রাজনীতিতে এবার অনেক ধন্যাড্য ব্যাক্তি টাকার জোয়ার ভাসিয়েছেন হাসান বিরোধী শিবিরে । টাকার আধিক্যে তাই তারা ছিলেন এতটাই অন্ধ যে নির্বাচনের আগেই তারা জিতে গেছেন এমন ভাব অনেকেই নিয়েছে ।  কিন্তু সমস্যা হোল তরুণদের টাকা দিয়ে কেনা যায় কম , তারুণ্যের মন জয় করতে হয়  ব্যাক্তিত্ব দিয়ে ।



Dব্যাক্তিত্ব , ও জনপ্রিয়তার প্রমান দিলেন আরিফুল হক হাসান । এইবার অতীতের অশিক্ষিত প্রতিপক্ষদের হুমকি গুলো কে ক্ষমা করে দিয়ে একটি সুন্দর সিদ্ধিরগঞ্জ ও ইউনাইটেড সিদ্ধিরগঞ্জ প্রতিষ্ঠা করবেন বলেই সকল নাগরিকের  প্রত্যাশা ।  এলাকার বিভিন্ন  ব্যাপারে  ঐক্য  প্রতিষ্ঠার মাধ্যমেই কেবল এগিয়ে যেতে পাড়ে সিদ্ধিরগঞ্জ , এতে এগিয়ে যাবে আরিফুল হক হাসানের রাজনৈতিক ক্যারিয়ারও ।

কিন্তু আজ শুরুতেই হাসান এর বিজয় মিছিল হামলার মুখে পড়ে শিরাইল এলাকায় । এতে বিভিন্ন হাসান সর্থনকারী গুরতর ভাবে আহত হয়েছে । ।  দিনের শুরুতেই এই ন্যাক্কারজনক হামলা কারো জন্য ভাল সংবাদ বয়ে আনবে না বলেই সবাই মনে করে । এক মাঘে শিত যায় না তা সবারই dবোঝা উচিৎ ।



আর এখন পর্যন্ত নারায়ণগঞ্জ

সিটি করপোরেশন নির্বাচন - ২০১৬
প্রাপ্ত কেন্দ্রের ফলাফল : ৮৮ টি
সেলিনা হায়াৎ আইভী ৮৮২৮৯
সাখাওয়াত হোসনে খান ৫২৯০৩



জয় তারুণ্যের , জয় বাংলা , জয় বঙ্গবন্ধু



Tuesday, November 15, 2016

সিদ্ধিরগঞ্জ পৌরসভার সাবেক মেয়র মতিন প্রধান ২০১৬ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন বাতিলের জন্য পাঠালেন আইনি নোটিশ

২০১০ সালের ৫ মে এক প্রজ্ঞাপনে নারায়ণগঞ্জ পৌরসভা, সিদ্ধিরগঞ্জ পৌরসভা ও বন্দরের কদমরসুল পৌরসভা নিয়ে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন গঠিত হয়। পরের বছর ৩১ অক্টোবর নবগঠিত সিটি কর্পোরেশনের প্রথম নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়।

এরপর ২০১৩ সালের ফেব্রুয়ারিতে সাবেক সিদ্ধিরগঞ্জ পৌরসভার সাবেক প্রশাসক আবদুল মতিন প্রধান নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন থেকে সিদ্ধিরগঞ্জ পৌরসভাকে আলাদা করতে হাইকোর্টে একটি রিট দাখিল করেন। ঐ সময় এ রিটের শুনানি নিয়ে হাইকোর্ট

রুল জারি করে। রুলটি বর্তমানে বিচারপতি ওবায়দুল হাসান ও কৃষ্ণা দেবনাথের বেঞ্চে রুলটি বিবেচনাধীন রয়েছে।

এ অবস্থায় নির্বাচনের তফসিল আইনি নোটিস পাওয়ার ২৪ ঘণ্টার মধ্যে প্রধান নির্বাচন কমিশনারকে প্রত্যাহার, বাতিল বা স্থগিত করতে বলা হয়েছে। একইসঙ্গে স্থানীয় সরকার সচিবকে এ নির্বাচন বন্ধে পদক্ষেপ নিতে বলা হয়েছে। অন্যথায় আইনগত পদক্ষেপের নেয়া হবে বলে  নোটিসে বলা হয়েছে।

সিদ্ধিরগঞ্জ পৌরসভাকে নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন থেকে আলাদা করার মামলা বিচারাধীন থাকা অবস্থায় নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করার কারণে এই নোটিস দেয়া হয়েছে।

নোটিসে প্রধান নির্বাচন কমিশনার, স্থানীয় সরকার সচিব, নির্বাচন কমিশন সচিব, রিটার্নিং অফিসার, নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসক ও নারায়ণগঞ্জের সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তাকে বিবাদী করা হয়েছে।

১৪ নভেম্বর বিকালে ইসি কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের (নাসিক) নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেন। আগামী ২২ ডিসেম্বর এ নির্বাচনে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

 

 

Friday, October 28, 2016

র‌্যাব ১১ সাথে ক্রসফায়ারে আইল পাড়ার ইয়াবা ব্যাবসায়ি ও সন্ত্রাসী দেলু নিহত ।

র‌্যাব-১১, সিপিসি-১, কালীরবাজার ক্যাম্প অধিনায়ক এএসপি শাহ্ মো: শিবলী সাদিক জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে র‌্যাব জানতে পারে দূর্ধর্ষ অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী ডাকাত সর্দার মাস্টার দেলু  গোদনাইল বার্মষ্ট্যান্ড এলাকায় মরহুম বীর মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার ইসমাইল হোসেন এর বাড়ির ২ তলায় অবস্থান করছে। এরপর রবিবার দিবাগত রাত তিনটার দিকে র‌্যাব বাড়িটি গিয়ে ফেলে। এসময় মাস্টার দেলু বাহিনী র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে র‌্যাবকে লক্ষ্য করে গুলি ছুঁড়ে। পরে র‌্যাবও পাল্টা গুলি ছুঁড়লে দেলু গুলিবিদ্ধ হয়। তারপর দেলুকে উদ্ধার করে নারায়ণগঞ্জ ১’শ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক দেলুকে মৃত ঘোষণা করেন। শিবলী সাদিক আরো জানান, দেলুর আস্তানা থেকে অস্ত্র, গুলিসহ মাদস্ত্রব্য উদ্ধার করা হয়েছে।

এদিকে দুর্ধর্ষ সন্ত্রাসী মাস্টার দেলু নিহত হওয়ার সংবাদ পেয়ে ভোর থেকেই তার নির্যাতনের শিকার সিদ্ধিরগঞ্জ এলাকার বহু মানুষ একনজর তার rab-bangladesh-law-nd-orderলাশটি দেখতে মর্গে ভীড় জমাচ্ছে। মর্গে আগত এলাকাবাসি জানান, দেলু সিদ্ধিরগঞ্জ, তল্লা এলাকায় নিরীহ মানুষের উপড় যে পরিমানে অত্যাচার চালিয়েছে আল্লাহ র‌্যাবের মাধ্যমে তার বিচার করেছেন। সাধারন জনগণ দেলুর নিহত হওয়ার ঘটনায় র‌্যাবকে সাধুবাদ জানান।পুলিশ জানান, দেলুর বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় হত্যা, মাদক, ডাকাতি, অস্ত্রসহ বহু মামলা রয়েছে।

 

এর আগে এপ্রিল মাসে দেলুকে গ্রেফতারো করা হয় ঃ

db-b20160403153351

 

এপ্রিল ২০১৬ পুলিশের অভিযানে আইল পাড়া থেকে ২ টি পিস্তল , ২৭ রাউন্ড গুলি ও হেরোইন উদ্ধার

Saturday, September 3, 2016

এক সিদ্ধিরগঞ্জ থানার এসআই লজ্জিত করল বাংলাদেশ পুলিশের ইমেজ কে - দিন বদলের সময় আসবে কবে

সিদ্ধিরগঞ্জ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আতাউর রহমানের বিরুদ্ধে ৩১ আগস্ট রাতে সিদ্ধিরগঞ্জ থানার পাশে সোর্স নজরুল ভাড়া বাসায় ডেকে এনে এক আসামীর দুই স্ত্রীকে  শারীরিক নির্যাতন করা হয় বলে অভিযোগ ঠে  আসে  ।

পরদিন এই দুই মহিলা সাংবাদিক ও বিভিন্ন আইনজীবীদের কাছে অভিযোগ করলে । কালের কন্ঠ ও অনলাইনে এই খবরে তোলাপার শুরু হয়ে যায় । ডাকাতি মামলায় মিজমিজি দক্ষিণপাড়া  থেকে একজনকে গ্রেফতার করে ৩১ আগস্ট রিমান্ডে নেয় পুলিশ। ওই রাতেই রিমান্ডে নির্যাতন করা হবে না শর্তে ২৫ হাজার টাকা দিতে ব্যর্থ হওয়ায় দুই সতীনকে ধর্ষণের অভিযোগ ওঠে এসআই আতাউর ও তার দুইজন সোর্স নজরুল এবং শুভের বিরুদ্ধে। বিষয়টি সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত হলে গঠন করা হয় তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি। শুক্রবার আটক করা হয় দুইজন সোর্স নজরুল ও শুভকে।

 

এই ঘটনার সত্যি মিথ্যা কখন বের হয়ে আসবে না ।  কিন্তু শুধুমাত্র একজন সিদ্ধিরগঞ্জ থানার পুলিশের এস আই এর কারনে আজ সমগ্র প্রতিষ্ঠানটি সোসাল  মিডিয়াতে  পুলিশ এর নামে মানুষ বিভিন্ন নেগেটিভ মন্ত্যব্য করছে । এই ঘটনায় এস আই আতাউর সরাসরি জড়িত ছিল না কি ছিল না তার থেকে গুরত্বপুরন । ইচ্ছার বিরুদ্ধে দুই  নারীর সম্ভ্রম কেড়ে নেবার মত উন্মাদনা কেন আমাদের মত মুসলিম দেশে আজো চলছে ।

 

আর বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই সোর্স রা ইয়াবা সেবি কিংবা প্রত্যখ্য ভাবে এর ব্যাবসার সাথেই জড়িত । ক্রাইম দমন করতে গিয়ে , ক্রিমিনাল দের সাথে থেকে যখন আইন রক্ষাকারী করে বসে মানবের হিন্যতম অপরাধ তখন প্রশ্ন থেকে যায়  রাষ্ট্রের কাছে ।  আর কত ধামা চাপা দিতে হবে আমাদের কলঙ্ক গুলোকে

Tuesday, May 24, 2016

ওয়ারেন্ট ছাড়া গ্রেফতার বন্ধ - হাইকোর্টের রুল - সচেতন হউন পুলিশি গ্রেফতারের ব্যাপারে

অনেক বৎসর থেকেই ৫৪ ধারার অপ ব্যাবহার এর বিভিন্ন ঘটনা এবং নাগরিক অধিকার সুরক্ষায় হাইকোর্টের এক যুগান্তকারী রায় এর মাধ্যমে বাংলাদেশের আইন শৃঙ্খলায় রক্ষা বাহিনীকে আরো জবাবদিহিতার মধ্যে নিয়ে আশা হয়েছে ।

প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহার নেতৃত্বাধীন চার সদস্যের আপিল বেঞ্চ মঙ্গলবার এই রায় দেয়।

এর ফলে ৫৪ ধারা ও ১৬৭ ধারা নিয়ে হাই কোর্টের দেওয়া নির্দেশনা বহাল এবং তা মানায় সরকারের বাধ্যবাধকতা থাকছে বলে জানিয়েছেন আইনজীবীরা।

এখন থেকে যে কোন পুলিশি গ্রেফতারের আগে পুলিশের কাছ থেকে পরিচয়পত্র এবং  ওয়ারেন্ট দেখার অধিকার রাখেন নাগরিক রা।

যে কোন বেআইনি কর্মকাণ্ডে হাতে নাতে ধরা পড়া  ব্যাতিত সম্পূর্ণ সন্ধেহর ভিত্তিতে  পুলিশ চাইলেই কাউকে গ্রেফতার করতে পাড়বে না ।

হাইকোর্টের নির্দেশনা ঃ
ক. আটকাদেশ (ডিটেনশন) দেওয়ার জন্য পুলিশ কাউকে ৫৪ ধারায় গ্রেপ্তার করতে পারবে না।



  • খ. কাউকে গ্রেপ্তার করার সময় পুলিশ তার পরিচয়পত্র দেখাতে বাধ্য থাকবে।

    গ. গ্রেপ্তারের তিন ঘণ্টার মধ্যে গ্রেপ্তার ব্যক্তিকে কারণ জানাতে হবে।

    ঘ. বাসা বা ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ছাড়া অন্য স্থান থেকে গ্রেপ্তার ব্যক্তির নিকট আত্মীয়কে এক ঘণ্টার মধ্যে টেলিফোন বা বিশেষ বার্তাবাহকের মাধ্যমে বিষয়টি জানাতে হবে।

    ঙ. গ্রেপ্তার ব্যক্তিকে তার পছন্দ অনুযায়ী আইনজীবী ও আত্মীয়দের সঙ্গে পরামর্শ করতে দিতে হবে।

    চ. গ্রেপ্তার ব্যক্তিকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের প্রয়োজন হলে ম্যাজিস্ট্রেটের অনুমতি নিয়ে কারাগারের ভেতরে কাচের তৈরি বিশেষ কক্ষে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করতে হবে। ওই কক্ষের বাইরে তার আইনজীবী ও নিকট আত্মীয় থাকতে পারবেন।

    ছ. জিজ্ঞাসাবাদের আগে ও পরে ওই ব্যক্তির ডাক্তারি পরীক্ষা করাতে হবে।

    ট. পুলিশ হেফাজতে নির্যাতনের অভিযোগ উঠলে ম্যাজিস্ট্রেট সঙ্গে সঙ্গে মেডিকেল বোর্ড গঠন করবে। বোর্ড যদি বলে ওই ব্যক্তির ওপর নির্যাতন করা হয়েছে তাহলে সংশ্লিষ্ট পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ম্যাজিস্ট্রেট ব্যবস্থা নেবেন এবং তাকে দণ্ডবিধির ৩৩০ ধারায় অভিযুক্ত করা হবে।


ফৌজদারি কার্যবিধির ৫৪ ধারা অনুযায়ী কোনো পুলিশ সদস্য যদি কাউকে বিনা পরোয়ানায় গ্রেপ্তার করে, কিংবা ১৬৭ ধারায় রিমান্ডে নেয়, তবে তার বিরুদ্ধে ব্যব্স্থা নেওয়া হবে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল এ কথা জানিয়েছেন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আজ মঙ্গলবার দুপুরে সচিবালয়ের নিজ কার্যালয়ে এ কথা বলেন।

আসাদুজ্জামান খাঁন বলেন, ‘হাইকোর্টের রায় আপিল বিভাগ বহাল রেখেছেন। কাজেই উচ্চ আদালতের রায় আমাদের জন্য মানা বাধ্যতামূলক। উচ্চ আদালত যে রায় দিয়েছেন তা আমি শুনেছি। এখনো রায়ের পূর্ণাঙ্গ অনুলিপি হাতে পাইনি। রায়ের কপি পেলে কী কী নির্দেশনা আছে সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

আজ সকালে ফৌজদারি কার্যবিধির ৫৪ ও ১৬৭ ধারা অনুযায়ী বিনা পরোয়ানায় গ্রেপ্তার ও রিমান্ড বিষয়ে হাইকোর্টের দেওয়া নির্দেশনা বহাল রাখেন আপিল বিভাগ।






রাষ্ট্রের প্রধান আইন কর্মকর্তা বলেন, “সব সময় আগে থেকে মামলা করে ধরা সম্ভব হয় না। অপেক্ষা করে বসে থাকলে তো সে পালাবে। যেমন যুদ্ধাপরাধী বাচ্চু রাজাকার গ্রেপ্তারের নির্দেশ শুনে পালিয়েছে।... এগুলো জেনারালাইজ করা যাবে না। একেকটা ঘটনায় একেক রকম পদক্ষেপ নিতে হয়। তবে যাই হোক না কেন, আদালতের নির্দেশের আলোকেই নিতে হবে। আশা করি আদালতও বাস্তব অবস্থা বিবেচনা করবে।”

মাহবুবে আলমের বিশ্বাস, নিজেদের পরিচয় না দিয়ে আইন-শৃংখলা বাহিনী কাউকে কখনো গ্রেপ্তার করতে যায় না।

“এখন দেখা যাচ্ছে এক জনকে শক্রুতা বশত গায়েব করে ফেলছে, পরিচয় দিচ্ছে আইন শৃংখলা-বাহিনীর লোক। আশা করি এটা বন্ধ হবে। সাদা পোশাকে যারা করবে তাদের কাজ হবে আসামিকে অনুসরণ করা, গতিবিধি লক্ষ্য করা; তাকে গ্রেপ্তার করার সময় নিশ্চই পরিচয় দেওয়া উচিত।”

অন্যদিকে ব্যারিস্টার সারা হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, “আমাদের সবচেয়ে বড় অর্জন- বাহাত্তরের সংবিধানপরবর্তী সময়ে আমাদের পুরনো আইনগুলো কীভাবে ব্যাখ্যা ও প্রয়োগ করা হবে সেটা আমরা এই রায়ের মাধ্যমে পেয়েছি।

“বাহাত্তরের সংবিধানে আমাদের গ্রেপ্তার ও আটকাদেশের বিষয়ে কিছু রক্ষাকবচের ব্যবস্থা ছিল। আইনজীবীর সহযোগিতা পাবার অধিকার, আমরা যখন গ্রেপ্তার হই বা আমাদের যখন আটকাদেশ দেওয়া হয় আমাদেরকে কোর্টের সামনে সোপর্দ করতে হবে। ৩৬ ধারায় বলা হয়েছে হেফাজতে যে কোনো ধরনের নির্যাতন একেবারে নিষিদ্ধ। যে কোনো ধরনের অমানবিক সাজা নিষিদ্ধ। এই দুটি ধারার পরিপূর্ণ ব্যাখ্যা আমরা আশা করছি রায়ের মাধ্যমে পাব।”


এই যুগান্তকারী রায়ের মাধ্যমে রাগরিক অধিকার রক্ষায় আরেকটু এগিয়ে গেল বাংলাদেশ । প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহার নেতৃত্বের এই রুলের মাধ্যমে  নাগরিক রা ফিরে পেল তাদের সাংবিধানিক অধিকার ।



বিডি নিউজ নেট থেকে প্রকাশিত

সিদ্ধিরগঞ্জ ডট কম bdnewsnet.com এর একটি অঙ্গ প্রতিষ্ঠান


http://www.bdnewsnet.com/2016/05/High-court-rule-2016-ak-sinha-pollice.html

Thursday, May 12, 2016

কালবৈশাখীর বজ্রপাতে সারাদেশে ৫৪ জনের মৃত্যু - যা আগে আর কখন এক দিনে ঘটে নি

lightining-strike-banglades


পুরো  সপ্তাহ গরমের পর বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা সাতটার সময় রাজধানীসহ দেশের অনেক জেলায় বৃষ্টি ও ঝড়ো হাওয়া বয়ে যায়। এর সঙ্গে হয় বজ্রপাতও, এতে নয়টি জেলায় প্রাণহানি ঘটে।

বজ্রপাতে সবচেয়ে বেশি মৃত্যু ঘটেছে সিরাজগঞ্জে। উত্তরাঞ্চলের এই জেলায় পাঁচজন মারা যান। ঢাকার যাত্রাবাড়ীতে মারা গেছেন দুই শিক্ষার্থী। এছাড়া রাজশাহীতে ৩, পাবনায় ৪, ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ৪ জন, গাজীপুরে ২, বগুড়ায় ২, হবিগঞ্জে ১, কিশোরগঞ্জে ৪, নাটোরে ২ জন মারা গেছেন।

কিন্তু নিহতের সংখ্যা আরও বেশি বলে আশংকা করা হচ্ছে।

সন্ধ্যে সাতটার পর সারা দেশেই তীব্র কাল বৈশাখী ঝড় শুরু হয়।

এসময় অস্বাভাবিক রকমের বেশি বজ্রপাত হয়েছে।

ছয় বছরে বজ্রপাতে নিহত হয়েছেন ১৪২০ জন। এর মধ্যে শিশু ২৭২ জন। নারী রয়েছে ২১৮ জন। আর পুরুষ রয়েছে ৯৩০ জন। দিন দিন বজ্রপাতে মৃত্যুর মিছিল দীর্ঘ হচ্ছে। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তর, দুর্যোগ ফোরাম, গণমাধ্যমের তথ্য ও একাধিক স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার হিসাব মতে এই তথ্য পাওয়া গেছে।



 
বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তরের কয়েক বছরের বজ্রপাতের ডাটা বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, বাংলাদেশের মধ্য অঞ্চল অর্থাৎ ঢাকা, টাঙ্গাইল, কুমিল্লা, ময়মনসিংহ ও ফরিদপুর অঞ্চল এবং পশ্চিমাঞ্চল বৃহত্তর যশোর, কুষ্টিয়া ও খুলনা অঞ্চলে সবচেয়ে বেশি বজ্রপাতের ঘটনা ঘটেছে। সংশ্লিষ্টরা জানান, বৈশাখ- জ্যৈষ্ঠ থেকে শুরু করে শীতের আগ পর্যন্ত তাপমাত্রা বেড়ে যাওয়ায় প্রচুর জলীয় বাষ্প ঊর্ধ্বমুখী হয়ে মেঘের ভেতরে যায়। জলীয় বাষ্পের কারণে মেঘের ভেতরে থাকা জলকণা ও বরফ কণার ঘর্ষণের ফলে বজ্রপাতের সৃষ্টি হয়। সাধারণত মাটি থেকে আকাশের ৪ মাইল সীমার মধ্যে সবচেয়ে বেশি বজ্রপাতের ঘটনা ঘটে। ভয়াবহ এই বজ্রপাতের ছোবলে কিছু বুঝে ওঠার আগেই মারা যায় যে কোনো প্রাণী। এমনকি গাছের ওপর পড়লেও গাছটি মারা যায় কয়েকদিনের মধ্যেই।

 যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের এক গবেষণায় বলা হয়েছে, বিশ্বের গড় তাপমাত্রা এক ডিগ্রি  সেলসিয়াস বাড়লে বজ্রপাত অন্তত ১৫ শতাংশ এবং ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস বাড়লে ৫০ শতাংশেরও বেশি বজ্রপাত হতে পারে। কয়েকটি দেশের হিসাব কষে এই ফল দেয়া হয়েছে।

 রিপোর্টে বলা হয় কঙ্গোয় ভূমি থেকে এক হাজার মিটারেরও বেশি উচ্চতায় কিফুকা পর্বতের এক গ্রামে বিশ্বের সবচেয়ে  বেশি বজ্রপাত হয়। বছরে প্রতি বর্গকিলোমিটারে দেড়শ বার। পরবর্তী অবস্থানে আছে ভেনিজুয়েলা, উত্তর ব্রাজিল ও যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা। বিশ্বে প্রতি সেকেন্ডে গড়ে ৪৫ বার বজ্রপাত হয়। সেই হিসেবে বছরে এ সংখ্যা প্রায়  দেড়শ কোটি বার।

 বজ্রপাতের কারণ ও প্রকৃতি সম্পর্কে বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের এক প্রতিবেদনে  দেখা যায়, একেকটি বজ্রপাতের সময় প্রায় ৬০০ মেগাভোল্ট বিদ্যুৎ প্রবাহিত হয়। অথচ একজন মানুষের মৃত্যুর জন্য মাত্র ১১০ ভোল্ট বিদ্যুৎ যথেষ্ট। সাধারণত আমরা বাসাবাড়িতে মাত্র ২২০ ভোল্ট ও শিল্প-কারখানায় ১২শ’  ভোল্টের বিদ্যুৎ ব্যবহার করে থাকি। এছাড়া, জাতীয় গ্রিডে ১১ হাজার  ভোল্টের বিদ্যুৎ প্রবাহিত হয়।

 এ ব্যাপারে আবহাওয়াবিদ ও বজ্রপাত বিষয়ক গবেষক বিজ্ঞানী আব্দুল মান্নান  বলেন, বায়ুতে তাপমাত্রা  বেশি থাকা, বাতাসে জলীয় বাষ্প বেড়ে যাওয়াসহ বায়ুতে অস্থিরতা বিরাজ করলে বজ্রপাতের ঘটনা ঘটে থাকে।  ভৌগোলিকভাবে বাংলাদেশ এমন একটা জায়গায় অবস্থান করছে, যেখানে বজ্রপাতের আশঙ্কা অনেক বেশি।

 এসএমআরসির বাংলাদেশ কার্যালয়ের এ বিজ্ঞানী বলেন, বিদ্যুৎ সব সময় পরিবাহী ব্যবহার করে। বজ্র বিদ্যুৎও তেমন পরিবাহী ব্যবহারের চেষ্টা করে। সেক্ষেত্রে যে এলাকায় বজ্রপাত হবে সেখানে বড় বড় গাছ থাকলে সাধারণত তার ওপরে পড়ে গাছকে পরিবাহী করে মাটি পর্যন্ত আসে। এছাড়া, যে কোনো বড় বড় টাওয়ারকেও পরিবাহী হিসেবে ব্যবহার করতে পারে যদি তাতে কোনো বজ্রনিরোধক যন্ত্র না লাগানো থাকে।

 সংশ্লিষ্টরা বলছেন, বজ্রপাত কোনোভাবেই বন্ধ করা যাবে না। তবে বজ্রপাতকে মোকাবিলা করা সম্ভব। এর হাত থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য বাড়িতে বজ্রনিরোধক যন্ত্র লাগানো, বজ্রপাতের সময় বজ্র নিরোধক যন্ত্রওয়ালা বাড়িতে অবস্থান নেয়া, আকাশে মেঘ গর্জন বা বজ্রপাতের সময় মোবাইল ফোনে কথা না বলা ও সব ধরনের বৈদ্যুতিক সুইচ  অফ রাখাসহ কিছু নিয়ম মেনে চললে বজ্রপাতের অপূরণীয় ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা পাওয়া সম্ভব।

 এছাড়া, আগেকার দিনে গ্রামাঞ্চলে বড় বড় গাছ দেখা যেতো যেগুলো বজ্রপাত থেকে লোকালয়ের মানুষগুলোকে রক্ষা করতো। ২০০৯ সাল থেকে বজ্রপাতের ওপর গবেষণা করছে এসএমআরসি।

সার্ক স্টর্ম প্রোগ্রাম নামের এ প্রকল্পের অধীনস্থ গবেষকদের পর্যবেক্ষণ অনুযায়ী, সার্কভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে বজ্রপাতের সংখ্যা ও প্রাণহানির দিক দিয়ে সর্বোচ্চ ঝুঁকিতে রয়েছে বাংলাদেশ।

 সার্কভুক্ত অন্য দেশের তুলনায় বাংলাদেশে বজ্রপাতে মৃত্যুর হার বেশি। সংস্থাটির ঢাকা কার্যালয়ের গবেষকদের পর্যবেক্ষণ অনুযায়ী, বাংলাদেশে প্রতিবছর বজ্রপাতে মারা যায় ৫০০ থেকে ৮০০ লোক। সার্ক আবহাওয়া গবেষণাকেন্দ্রের (এসএমআরসি) তথ্য অনুযায়ী, প্রতিবছর মার্চ থেকে মে পর্যন্ত বাংলাদেশে প্রতি বর্গকিলোমিটারে ৪০টি বজ্রপাত হয়। এতে বছরে মাত্র ১৫০ বা তার কিছু বেশি লোকের মৃত্যুর খবর গণমাধ্যমে ছাপা হয়। আসলে এ সংখ্যা ৫০০ থেকে ৮০০ হবে। তবে যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল লাইটনিং সেফটি ইনস্টিটিউটের ২০১০ সালে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে দেখা যায় প্রতিবছর সারা বিশ্বে বজ্রপাতে যত মানুষের মৃত্যু ঘটে, তার এক-চতুর্থাংশ ঘটে বাংলাদেশে।







ঢাকার বাসিন্দারা জানিয়েছেন, এরকম তীব্র বজ্রপাত তারা তাদের স্মরণকালে দেখেননি।

রাজশাহীর জেলা প্রশাসক জানিয়েছেন সেখানে অন্তত পাঁচ জন বজ্রপাতে প্রাণ হারিয়েছেন।

সিরাজগঞ্জে চারজন এবং কিশোরগঞ্জে চার জন নিহত হয়েছেন বলে জানিয়েছেন সেখানকার কর্মকর্তারা।

এছাড়া ঢাকা, নাটোর, গাজীপুর থেকেও বজ্রপাতে নিহত হওয়ার খবর এসেছে।


বিলুপ্ত সার্ক আবহাওয়া গবেষণা কেন্দ্রের সাবেক পরিচালক সুজিত কুমার দেবশর্মা  বলেন, কালবৈশাখী মৌসুমে বজ্রঝড় বেশি হয়। সাধারণত মার্চ থেকে মে মাস পর্যন্ত বজ্রঝড় হয়ে থাকে। বর্ষাকালের পর কখনও কখনও অক্টোবর-নভেম্বর মাসেও তা দেখা যায়। বাংলাদেশে প্রতি বছর বজ্রপাতে গড়ে দুই থেকে তিনশ’ মানুষের প্রাণহানি ঘটে বলে জানান তিনি।


আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে, বৃহস্পতিবার টাঙ্গাইলে ৩৭ মিলিমিটার সর্বোচ্চ বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়। এছাড়া নেত্রকোনা, কুমিল্লা, সিলেট, শ্রীমঙ্গল, রাজশাহী, ঈশ্বরদী, বগুড়া, বদলগাছী, তাড়াশ, রংপুর, দিনাজপুর, রাজাহাট, ভোলা ও পটুয়াখালীতে বৃষ্টি হয়েছে।

বৃহস্পতিবার দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছে মংলা ও যশোরে ৩৭ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস,  ঢাকায় তাপপাত্রা ৩৬ ডিগ্রি সেলসিয়াসে উঠেছিল।

শুক্রবারের পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, রাজশাহী, রংপুর, ঢাকা ও সিলেট বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় এবং খুলনা, বরিশাল ও চট্টগ্রাম বিভাগের দুয়েক জায়গায় দমকা/ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি অথবা বজ্রবৃষ্টি হতে পারে।

চলতি এপ্রিল মাসের ১৮ তারিখের মধ্যেই বজ্রপাতে মৃত্যু হয়েছে ৪৮ জনের। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, জলবায়ু পরিবর্তন, অব্যাহতভাবে বড় বড় বৃক্ষ নিধনের পাশাপাশি পর্যাপ্ত গাছ লাগানো হচ্ছে না। তাই ভূ-পৃষ্ঠের তাপমাত্রা বৃদ্ধি পাওয়াসহ বাতাসে জলীয় বাষ্পের পরিমাণ বৃদ্ধি পাচ্ছে। যে কারণে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে বজ্রপাতের পরিমাণও বৃদ্ধি পাচ্ছে। এতো মৃত্যুর পরও বজ্রপাতকে দুর্যোগের অন্তর্ভুক্ত করা যাচ্ছে না। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, যেটার ক্ষয়ক্ষতি কমিউনিটির ভেতরে  থেকে মোকাবিলা করা সম্ভব না তাকে দুর্যোগ বলে। যেমন বন্যা ও ঘূর্ণিঝড়। পক্ষান্তরে যে সমস্যার মোকাবিলা কমিউনিটির ভেতরে থেকেই করা সম্ভব তাকে দুর্যোগ বলা যায় না। যেমন বজ্রপাত। এটার মোকাবিলার জন্য সচেতনতাই যথেষ্ট। তাই বজ্রপাতকে দুর্যোগ হিসেবে স্বীকৃতি দেয়া সম্ভব হচ্ছে না। আবহাওয়া অধিদপ্তরের  রেকর্ড অনুযায়ী, ২০১১ থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত গত ৫ বছরে সারা দেশে ৫ হাজার ৭৭২টি বজ্রপাত হয়। এর মধ্যে ২০১১ সালে ৯৭৮, ২০১২ সালে ১ হাজার ২১০, ২০১৩ সালে ১ হাজার ৪১৫, ২০১৪ সালে ৯৫১ ও ২০১৫ সালে ১ হাজার ২১৮ বজ্রাঘাত হেনেছে বাংলাদেশে। বেসরকারি প্রতিষ্ঠান দুর্যোগ ফোরামের গণমাধ্যম থেকে সংগৃহীত রিপোর্টে দেখা যায় শুধু চলতি এপ্রিল মাসের ১৮ তারিখের মধ্যেই সারা দেশে বজ্রপাতে মৃতের সংখ্যা নারী-পুরুষ ও শিশু মিলে ৪৮ জন। এর মধ্যে শিশু ১৪, নারী ৩ ও পুরুষ ৩১ জন। গত বছর ২০১৫ সালে এই সংখ্যা ছিল ২৭৪ জন। এর মধ্যে শিশু ৫৪, নারী ৩৬ ও ১৮৪ জন পুরুষ। ২০১৪ সালে ৩৯ শিশু, ২৮ নারী ও ১৪৩ পুরুষ মিলিয়ে ২১০, ২০১৩ সালে ৫৫ শিশু, ৫৩ নারী ও ১৭৭ পুরুষসহ ২৮৫ জন মারা যায়। ২০১২ সালে মারা যায় ৩০১ জন, এর মধ্যে রয়েছে ৬১ শিশু, ৫০ নারী ও পুরুষ। ২০১১ সালে বজ্রপাতে মৃত্যুর সংখ্যা ছিল ১৭৯ জন, যার মধ্যে ৩১ শিশু, ২৮ নারী ও ১২০ পুরুষ। সংস্থাটির ২০১৫ সালের তথ্য অনুযায়ী চাঁপাই নবাবগঞ্জ, কিশোরগঞ্জ, লালমনিরহাট, সুনামগঞ্জ, সাতক্ষীরা, দিনাজপুর ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সবচেয়ে বেশি বজ্রপাতের ঘটনা ঘটেছে।

Sunday, April 3, 2016

পুলিশের অভিযানে আইল পাড়া থেকে ২ টি পিস্তল , ২৭ রাউন্ড গুলি ও হেরোইন উদ্ধার

db-b20160403153351সিদ্ধিরগঞ্জের ক্রাইম জোন   আইল পাড়া থেকে পূর্বে গ্রেফতার এবং রিমান্ডে নেওয়া ইয়াবা ব্যাবসায়ি দেলোয়ার হোসেন দেলুর কাছ থেকে প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে দেলুর আস্তানা থেকে রোববার বিকেলে অস্ত্র গোলা বারুদ ও হেরোইন উদ্ধার করেছে জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশ ।

ডিবির এসআই মাজহারুল ইসলাম জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে এ এস আই ইব্রহিমসহ সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে রোববার বিকেলে সিদ্ধিরগঞ্জ আইলপাড়া এলাকা খাদেজার ভাড়াবাড়িতে অভিযান চালিয়ে দুটি পিস্তল, ২৭ রাউন্ড গুলি, ১১টি ককটেল, ৩.৩০ গ্রাম গান পাউডার ও ৬০ গ্রাম হেরোইন উদ্ধার করা হয়।

দেলোয়ার ওরফে মাস্টার দেলুকে গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছেতবে এসময় কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি ডিবি পুলিশ। তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় এক ডজনের বেশি মামলা রয়েছে।

অটো - সি এন জি চোরদের - আস্তানায় র‍্যাব ১১ এর অভিযান

RaB-big20160402155541

আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় র‍্যাপিড একশন ব্যাটালিয়ন র‍্যাব এর গৌরব উজ্জ্বল অতীতের ধারাবাহিকতায় এক নতুন  সফলতা - র‍্যাবের আভিযানিক দল এএসপি শাহ মোঃ মশিউর রহমান, পিপিএম এর নেতৃত্বে এক গ্যারেজের ভিতরে অভিযান পরিচালনা করে ২টি সিএনজি চালিত থ্রী হুইলার এবং চোরাইকৃত সিএনজি চালিত থ্রী হুইলার বিক্রির কাজে ব্যবহৃত ২টি মোবাইল সেটসহ আসামী রাকিব হাসান ওরফে রয়েল (৩৩) ও মোঃ কায়েসকে (৩০) গ্রেফতার করে।

BD-news-12l

উদ্ধারকৃত সিএনজি চালিত থ্রী হুইলার দুইটির আনুমানিক মূল্য ১০ লাখ টাকা।

র‍্যাব -১১ তাদের এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, নারায়ণগঞ্জ জেলায় বেশ কিছু দিন যাবৎ সিএনজি চালিত থ্রী হুইলার চোরাই চক্রের সদস্যরা সক্রিয় হয়ে উঠে। সিএনজি চালিত থ্রী হুইলার চোরাই চক্রের সদস্যরা শহরের বিভিন্ন স্থান হতে সিএনজি চালিত থ্রী হুইলার চুরি করে সিএনজি চালিত থ্রী হুইলার এর মালিক হতে মোটা অংকের টাকা দাবি অথবা অন্যত্র বিক্রি করে আসছিল।

বিভিন্ন সময়ে সিএনজি চালিত থ্রী হুইলার চোরাই চক্রের সদস্যদের বিরুদ্ধে  র‍্যাব  কাছে অভিযোগ আসলেও সিএনজি চালিত থ্রী হুইলার চোরাই চক্রের সদস্যরা ধরা চোয়াড়  বাইরে থেকে যায়। কিন্তু  র‍্যাবের  গোয়েন্দা নজরদারি অব্যাহত থাকে। এরই ধারাবাহিকতায় ২ এপ্রিল শনিবার দুপুরে একটি আভিযানিক দল গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারে যে, নারায়ণগঞ্জ জেলার সদর মডেল থানাধীন গোগনগর পূর্ব মসিনাবন্দ গ্রামস্থ রাস্তার পূর্ব পার্শ্বে রাকিব হাসান ওরফে রয়েল এর ভাড়া করা টিনসেড গাড়ীর গ্যারেজের ভিতর চোরাই করা সিএনজি চলিত থ্রী হুইলার মজুদ আছে। উক্ত সংবাদের ভিত্তিতে  এই অভিযান পরিচালনা করা হয় ।